• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১১:১৩ অপরাহ্ন

সরকারের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে বাংলার যুব সমাজ ঝাঁপিয়ে পড়বে: পরশ

আমার কাগজ ডেস্ক: / ১৪ শেয়ার
প্রকাশিত : সোমবার, ২০ জুন, ২০২২

বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার বৃক্ষরোপণ কর্মসূচিকে একটি সফল সামাজিক আন্দোলনে পরিণত করেছে। যে আন্দোলনে সারা বাংলার যুব সমাজ একাত্মতা প্রকাশ করেছে। সরকারের এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে বাংলাদেশের যুবলীগ তথা যুবসমাজ ঝাঁপিয়ে পড়বে এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ।

সোমবার (২০ জুন) দুপুরে রাজধানীর হাতিরঝিলের প্লাটিনাম পার্কে ‌” রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নির্দেশে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের উদ্যোগে দেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচি” কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উদ্বোধক এর বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, প্রথমে আমি সিলেট বিভাগসহ সারা দেশের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সকলের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের সাহায্য করতে গিয়ে নিহত যুবলীগ নেতা জিঠু চৌধুরী ও নেত্রকোনা উপজেলা যুবলীগ নেতা আবির আহমেদের আত্মার শান্তি কামনা করছি। সিলেট যুবলীগ নেতাকর্মীদের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে থাকার জন্য উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি ইতিমধ্যে সিলেটসহ নেত্রকোনা যুবলীগের একাধিক শাখা ত্রান কার্যক্রমে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। বন্যা দুর্গত এলাকায় উদ্ধার অভিযানের পাশাপাশি শুকনা খাবার, ওষুধ ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ এলাকায় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে যা অত্যন্ত প্রশংসনীয়।

তিনি আরও বলেন, এই যে দেশের বিভিন্ন স্থানে বন্যা হচ্ছে এর অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে বৃক্ষনিধন। নগরায়নের সাথে সাথে প্রচুর বৃক্ষ নিধন হয়ে থাকে।আমরা যদি পর্যাপ্ত পরিমাণে বৃক্ষরোপণ করি তাহলে ভবিষ্যতে এই রকম প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে দেশকে বাঁচাতে পারবো। ইতিমধ্যে যুবলীগের অনেক শাখা বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি শুরু করে দিয়েছে। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করা আমাদের জন্য একটা বিরাট প্রতিবন্ধকতা। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নির্দেশে পরিবেশ সুরক্ষায় আমরা যুবলীগ সবসময় কাজ করবে। গত বছর প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানের এক কোটি বৃক্ষরোপণ করে প্রশংসার ভাগিদার হয়েছিলাম, এবারও সেই ধারাবাহিকতায় বৃক্ষরোপণ করতে চাই। আমরা প্রত্যেকে যেন অন্তত একটা করে গাছ লাগাই। একটা ফলজ, একটা বনজ ও একটা ঔষধি গাছ লাগাই, যাতে করে শুধু আমরা সুন্দর পরিবেশই পাবো না সাথে আমাদের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি আনায়ন হবে।

যুবলীগের চেয়ারম্যান বলেন, সরকারের প্রথম পঞ্চবার্ষিকীর সময়ে সারাদেশে ৫২ হাজার একর বনভূমি তৈরি করা হয়েছিল এছাড়া আরও ১৫ হাজার একর জমিতে বন তৈরি করার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আমরা সরকারের এই পরিকল্পনাকে সাধুবাদ জানাই।বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা যা কিছুই করেছেন সবই আমাদের পরবর্তী উন্নত ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য। একদিকে পদ্মা সেতু নির্মাণ করে যোগাযোগ ও অবকাঠামোগত উন্নয়নের যুগান্তকারী মাইলফলক সৃষ্টি করেছেন, অন্যদিকে বিশ্বে পরিবেশ রক্ষায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন। আর বিএনপি-জামায়াত পিছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতা দখলের নোংরা রাজনীতি করে যাচ্ছে। এখন বন্যা পরিস্থিতি নিয়েও নোংরা রাজনীতি করে যাচ্ছে বিএনপি জামায়াত। গত ১৩ বছর সকল আন্দোলনে ব্যর্থ হয়েছে বিএনপি জামাত। বিএনপি জামায়াত একটি সন্ত্রাসী দলে পরিণত হয়েছে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর অন্যতম সদস্য ঢাকা ১১ আসনের সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা একে এম রহমতুল্লাহ বলেন, আমার দরজা সব সময় খোলা। আপনারা যেকোনো সময় আমার কাছে আসতে পারেন। আমি সবার সাথে কথা বলে আগামী ২/১ দিনের মধ্যে প্রতিটি ওয়ার্ডে ১ হাজার করে গাছের বন্দোবস্ত আমি করবো।

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোঃ মাইনুল হোসেন খাঁন নিখিল বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ একটি মানবিক সংগঠন। আমরা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় কাজ করে যাচ্ছি। বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন আষাঢ়, শ্রাবণ, ভাদ্র এই তিনমাস সারাদেশে বৃক্ষ রোপন করার। আমরা তার নির্দেশে দেশ বাঁচাও, পরিবেশ বাঁচাও, মানুষ বাঁচাও এই শ্লোগানকে ধারণ করে মানবিক যুবলীগের উদ্যোগে দেশব্যাপী বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি শুরু করছি।
তিনি আরও বলেন, সারাদেশের যুবলীগের নেতাকর্মীরা বন্যা, দুর্যোগ মোকাবেলা করার জন্য সদা প্রস্তুত আছে।আমরা মানবিক কাজে লিপ্ত। করণা মহামারীর সময় আমরা আমাদের যুবলীগের নেতাকর্মীরা নিরলসভাবে কাজ করে গিয়েছি। আগামীতেও যেকোনো ধরনের দুর্যোগে এবং বাংলাদেশের পরিবেশ রক্ষায় যুবলীগ জননেত্রী শেখ হাসিনার দিক নির্দেশনা মেনে কাজ করে যাবে ইনশাল্লাহ।

উক্ত অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, ঢাকা মহানগর উওর আওয়ামী যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকির হোসেন বাবুল, সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাইন উদ্দিন রানা, সাধারণ সম্পাদক এইচ এম রেজাউল করিম রেজা, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম দূর্জয়, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক এ এইচ এম কামরুজ্জামান প্রমূখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ