• সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ০১:০২ পূর্বাহ্ন

ব্যক্তিগত স্মৃতির শেকড়ের সন্ধানে মিলল সাহিত্যের নোবেল

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ / ১৮ শেয়ার
প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর, ২০২২

 

সাহসিকতা ও  লেখনীর মাধ্যমে ব্যক্তিগত স্মৃতির শেকড় সন্ধান, বিরহ-বিচ্ছেদ আর সামষ্টিক সংযমের নতুন পাঠ উন্মোচন করে চলতি বছর সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন ফরাসি লেখক অ্যানি এরনাক্স। বৃহস্পতিবার রয়্যাল সুইডিশ একাডেমি সাহিত্যে ১১৯তম নোবেল বিজয়ী হিসেবে তার নাম ঘোষণা করেছে।

নোবেল জয়ের পর ফরাসি এই লেখক বলেছেন, লেখালেখি একটি রাজনৈতিক কাজ; যা সামাজিক বৈষম্যের বিরুদ্ধে আমাদের চোখ খুলে দেয়। যে কারণে তিনি ভাষাকে ‘ছুরি’ হিসাবে ব্যবহার করেন, তার মতে— এই ছুরি কল্পনার আবরণ ছিঁড়ে ফেলে।

র‌য়্যাল সুইডিশ একাডেমি বলেছে, ২০২২ সালের সাহিত্যে নোবেলজয়ী অ্যানি এরনাক্স লেখনীর মাধ্যমে মুক্তির শক্তিতে বিশ্বাস করেন। তার কাজ আপসহীন এবং সহজ-সরল আর প্রাঞ্জল ভাষায় লেখা, ঝকঝকে পরিষ্কার।

৮২ বছর বয়সী ফরাসি এই লেখকের বেশিরভাগ কাজই আত্মজীবনীমূলক। তার অধিকাংশ লেখার সঙ্গে সমাজবিজ্ঞানের ঘনিষ্ট সম্পর্কের বিষয়টি অত্যন্ত সাবলীলভাবে ফুটে ওঠে।

১৯৪০ সালের ১ সেপ্টেম্বর ফ্রান্সের নরম্যান্ডিতে জন্মগ্রহণ করেন ফরাসি এই সাহিত্যের অধ্যাপক। ইউনিভার্সিটি অব রুয়েন নরম্যান্ডি মন্ট-সেইন্ট-অ্যাগনান ক্যাম্পাস থেকে পড়াশোনা করেন তিনি।

তাকে এ বছরের নোবেলজয়ী হিসেবে বেছে নেওয়ার ব্যাখ্যায় একাডেমি বলছে, অ্যানি এরনাক্স একেবারে ধারাবাহিকভাবে এবং বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে লিঙ্গ, ভাষা আর শ্রেণি বিভাজন সম্পর্কিত প্রবল বৈষম্যে ভরা জীবনের গল্প তার লেখায় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন।

ফ্রান্সের উত্তরাঞ্চলীয় অঞ্চল নরম্যান্ডির নিম্নবিত্ত এক পরিবারে জন্ম অ্যানি এরনাক্সের। তার আত্মজীবনীমূলক ‘আ উইমেনস স্টোরি’, ‘আ মেনস প্লেস’ ও ‘সিম্পল প্যাশন’ বই বিশ্বজুড়ে এই লেখককে পরিচিত করে তোলে। দ্য ইয়ারস বইয়ের জন্য ২০১৯ সালে সাহিত্যের আরেক সম্মানজনক পুরস্কার ম্যান বুকার পেয়েছিলেন তিনি। ১৯৭৪ সালে এই সাহিত্যিকের প্রথম বই ‘লা আরমোরিস ভিদে’ ফরাসি ভাষায় প্রকাশিত হয়।

কুড়িটিরও বেশি বই লিখেছেন এই সাহিত্যিক; যার অনেকগুলোই কয়েক দশক ধরে ফ্রান্সে স্কুলের পাঠ্য বইয়ের তালিকায় রয়েছে। অ্যানি তার বইয়ে আধুনিক ফ্রান্সের সামাজিক জীবনের সবচেয়ে সূক্ষ্ম, অন্তর্দৃষ্টিমূলক ধারণা ফুটিয়ে তুলেছেন সাবলীলভাবে। নিম্নবিত্ত পরিবার থেকে সাহিত্যের অভিজাত শ্রেণির কাতারে নিজেকে নেওয়া অ্যানি ফরাসি সামাজিক কাঠামো আর নিজের জটিল সব আবেগের ওপর সমালোচনামূলক দৃষ্টি নিক্ষেপ করেছেন অত্যন্ত সুচারুভাবে।

পুরস্কার হিসেবে ১ কোটি সুইডিশ ক্রোনার পাবেন সাহিত্যের এই নোবেলজয়ী। গত বছর ভাগ্যাহত শরণার্থীদের জীবনের দুঃখ-দুর্দশা আর তাদের জীবনে ঔপনিবেশিকতার প্রভাব নিজের লেখনীতে দ্ব্যর্থহীনভাবে ফুটিয়ে তুলে সাহিত্যের নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন তানজানিয়ার ঔপন্যাসিক আব্দুলরাজাক গুরনাহ।

করোনা মহামারির কারণে ২০২০ ও ২০২১ সালে সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে ছোট আকারের অনুষ্ঠান আয়োজনের মাধ্যমে নোবেলজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়। সেই অনুষ্ঠানে আয়োজক কমিটির বাইরে অন্য কোনও অতিথি উপস্থিত ছিলেন না।

তবে এ বছর নোবেল ফাউন্ডেশন ২০২২ সালের বিজয়ীদের সঙ্গে গত দুই বছরের বিজয়ীদেরও ডিসেম্বরের নোবেল সপ্তাহে আমন্ত্রণ জানাবে। সেখানে ১০ ডিসেম্বর নোবেল পুরস্কারের মূল্য ১ কোটি সুইডিশ ক্রোনারের (প্রায় ৯ লাখ ডলার) পাশাপাশি বিজয়ীদের হাতে একটি সনদ ও স্বর্ণপদক তুলে দেওয়া হবে।

১৯০১ সালের পর থেকে এখন পর্যন্ত ১১৪ বার সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে চারবার যৌথভাবে এই পুরস্কার পেয়েছেন দু’জন করে। সাহিত্যের এই নোবেল পেয়েছেন মাত্র ১৬ জন নারী। নোবেল কমিটির সদস্যদের যৌন কেলেঙ্কারির ঘটনার জেরে ২০১৮ সালে সাহিত্যের পুরস্কার স্থগিত করেছিল সুইডিশ একাডেমি।

পরে ২০১৯ সালে দু’বারের নোবেলজয়ীর নাম ঘোষণা করা হয়। ২০১৮ সালের জন্য পোলিশ লেখক ওলগা টোকারচুক এবং পরের বছরের জন্য অস্ট্রিয়ার পেটার হান্টকরকে সাহিত্যের নোবেল দেওয়া হয়।

সাড়া জাগানো বই দ্য জঙ্গল বুকের জন্য সাহিত্যে সবচেয়ে কমবয়সী হিসেবে ৪১ বছর বয়সে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন রুডইয়ার্ড কিপলিং। তবে সবচেয়ে বয়োজ্যেষ্ঠ লেখক হিসেবে ২০০৭ সালে সাহিত্যের নোবেল ৮৮ বছর বয়সে পেয়েছিলেন ডরিস লেসিং।

বিলুপ্ত হোমিনিনের জিন ও মানব বিবর্তনের যুগান্তকরী এক গবেষণার জন্য চলতি বছরের চিকিৎসাবিজ্ঞানের নোবেল পুরস্কার বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হয় গত সোমবার। চিকিৎসাবিজ্ঞানের এই পুরস্কার পেয়েছেন সুইডিশ জিনতাত্ত্বিক বিজ্ঞানী সোয়ান্তে প্যাবো।

মঙ্গলবার নোবেল পুরস্কার ঘোষণার দ্বিতীয় দিনে পদার্থবিজ্ঞানে তিন নোবেলবিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হয়। তারা হলেন, ফরাসি পদার্থবিজ্ঞানী অ্যালাইন অ্যাসপেক্ট, মার্কিন পদার্থবিজ্ঞানী জন এফ ক্লজার ও অস্ট্রিয়ার পদার্থবিজ্ঞানী অ্যান্টন জেলিঙ্গার। নোবেল কমিটি বলেছে, বেল ইনেকুয়ালিটির পরীক্ষায় পাওয়া প্রমাণ ও কোয়ান্টাম অ্যান্টেঙ্গেলমেন্ট গবেষণায় তাৎপর্যপূর্ণ অবদানের জন্য ২০২২ সালে পদার্থবিজ্ঞানে তাদের এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।

ক্লিক রসায়ন এবং বায়োঅর্থোগোনাল রসায়নে অবদান রাখায় বুধবার রসায়নে চলতি বছরের নোবেল পুরস্কার দেওয়া হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানী ক্যারোলিন আর. বারতোজ্জি, ডেনমার্কের মর্টেন মেলডাল এবং যুক্তরাষ্ট্রের কে. ব্যারি শার্পলেসকে।

আগামী শুক্রবার (৭ অক্টোবর) শান্তিতে নোবেল বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হবে। আর ১০ অক্টোবর অর্থনীতিতে বিজয়ী ঘোষণার মাধ্যমে শেষ হবে এবারের নোবেল পুরস্কারের আনুষ্ঠানিকতা।

উনবিংশ শতাব্দীতে সুইডিশ বিজ্ঞানী আলফ্রেড নোবেল আবিষ্কার করেছিলেন ডিনামাইট নামের ব্যাপক বিধ্বংসী বিস্ফোরক, যা তাকে বিপুল পরিমাণ অর্থ-সম্পত্তির মালিক করে তোলে। মৃত্যুর আগে তিনি উইল করে যান— প্রতি বছর ৫টি বিষয়ে যারা বিশেষ আবদান রাখবেন তাদের যেন এই অর্থ থেকে পুরস্কার প্রদান করা হয়। ওই ৫ বিষয় হলো— চিকিৎসা, পদার্থ, রসায়ন, সাহিত্য ও শান্তি। ১৯০১ সাল থেকে শুরু হয় নোবেল পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান।

অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার প্রবর্তন করা হয় অনেক পরে ১৯৬৮ সালে। ব্যাংক অব সুইডেন আলফ্রেড নোবেলের স্মৃতিতে এই পুরস্কার চালু করে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ