• রবিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ১২:২৫ পূর্বাহ্ন

ফেনীর ‘মুজিব উদ্যানে’ সমাহিত হবেন জয়নাল হাজারী

আমার কাগজ ডেস্ক: / ২৯ শেয়ার
প্রকাশিত : সোমবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০২১

প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক সংসদ সদস্য জয়নাল হাজারীকে আগামীকাল মঙ্গলবার তার শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী ফেনী শহরে মাস্টারপাড়ায় নিজের বাসভবনের সামনে ‘মুজিব উদ্যানে’ সমাহিত করা হবে।

জয়নাল হাজারীর ভাতিজা সাবেক কাউন্সিলর টিটু হাজারী জানান, মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টায় ফেনী সরকারি পাইলট স্কুল মাঠে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া সকাল ১০টায় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় প্রথম জানাজা হওয়ার কথা রয়েছে।

সোমবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান ফেনী-২ (সদর) আসনের তিনবারের এই সাংসদ।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের লাইভে এসে জয়নাল হাজারী বলেছিলেন, ‘আমার মৃত্যুর পর নামাজে জানাজাটা যেন ফেনী সরকারি পাইলট হাইস্কুল মাঠে হয়।’

এ প্রসঙ্গে ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী বলেন, প্রয়াত নেতার আশা পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পূরণ করা হবে। আমি নিজে উপস্থিত হয়ে লক্ষাধিক মানুষ নিয়ে ফেনী পাইলট হাইস্কুল মাঠে তার নামাজে জানাজা পড়ব।

ফেনী জেলা প্রশাসক আবু সেলিম মাহমুদ-উল হাসান জানান, জানাজার পূর্বে বীর মুক্তিযোদ্ধার প্রতি রাষ্ট্রীয়ভাবে গার্ড অব অনার প্রদান করা হবে।

জয়নাল হাজারী ১৯৪৫ সালের ২৪ আগস্ট ফেনীতে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৮৪ সাল থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ফেনী-২ (সদর) আসন থেকে ১৯৮৬, ১৯৯১ এবং ১৯৯৬ সালে টানা তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।

২০০১ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় ১৬ আগস্ট রাতে যৌথবাহিনী তার বাড়িতে অভিযান চালায়। পরদিন তিনি পালিয়ে আত্মগোপনে ভারতে চলে যান। সংসদ সদস্য হিসেবে তার শেষ মেয়াদে নানা বিতর্কে জড়ান জয়নাল হাজারী। এ কারণে ২০০৪ সালে দল থেকে বহিষ্কৃত হন। এরপর দীর্ঘদিন রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় ছিলেন তিনি।

নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর ২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে জয়নাল হাজারী দেশে ফিরেন। পাঁচটি মামলায় ৬০ বছরের সাজা হয় তার। এরপর ওই বছরের ২২ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টে আত্মসমর্পণ করলে আট সপ্তাহের জামিন পান হাজারী।

পরে ১৫ এপ্রিল নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করলে তাকে পাঠানো হয় কারাগারে। চার মাস কারাভোগের পরে ২০০৯ সালের ২ সেপ্টেম্বর জামিনে মুক্ত হন তিনি। একে একে তার বিরুদ্ধে করা সব মামলা থেকে অব্যাহতি পান। ২০১০ সাল থেকে ঢাকাতেই থাকতেন তিনি। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি চিরকুমার ছিলেন।

আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার দেড় দশক পর ২০১৯ সালে সাবেক সাংসদ জয়নাল হাজারী দলীয় পদে ফিরেন। ফেনীর এই নেতাকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ