• বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৮:২৯ অপরাহ্ন

থানাকে সবার আশ্রয়স্থল হিসেবে গড়ে তুলতে হবে: ডিএমপির সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আইজিপি

আমার কাগজ ডেস্ক: / ২১ শেয়ার
প্রকাশিত : রবিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২২

নবনিযুক্ত বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেছেন, আমাদের দায়িত্বশীলতা দিয়ে থানাকে সবার আশ্রয়স্থল বানাতে হবে। সবাই ৯-৫টা কাজ করে কিন্তু থানার দরজা কখনো বন্ধ হয় না।

রোববার রাজারবাগের বাংলাদেশ পুলিশ অডিটরিয়ামে আইজিপিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজনে এসব কথা কথা বলেন আইজিপি।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে নবনিযুক্ত আইজিপি বলেন, প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ পুলিশের জন্য অনেক কাজ করেছেন, অনেক সমস্যার সমাধান করেছেন। একটা সমস্যা সমাধান হলে আরেকটা সমস্যা তৈরি হয়। সবাই মিলে চেষ্টা করলে সকল সমস্যার সমাধান হবে।
তিনি বলেন, ট্রাফিক পুলিশ অবিরাম কষ্ট করে। মানুষ ট্রাফিক পুলিশের সমালোচনা করে, কিন্তু ট্রাফিক পুলিশ রোদ, বৃষ্টি ঝড়ে একটানা কাজ করে। ৯৯৯ এর কারণে মানুষ এখন বিশ্বাস করে পুলিশের কাছে গেলেই তাদের সমস্যার সমাধান হবে।
তিনি আরও বলেন, সবার আন্তরিকতার সাথে কাজ করার কারণে চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি প্রতিরোধসহ গার্মেন্টস সেক্টর তথা সারা দেশে স্থিতিশীল আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিরাজ করছে ফলে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জিত হচ্ছে। দেশ ঈর্ষনীয় উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। জঙ্গিবাদ মোকাবিলা করতে সারা বিশ্ব যেখানে হিমশিম খাচ্ছে সেখানে বাংলাদেশ পুলিশ যথেষ্ট সক্ষমতার পরিচয় দিয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের দায়িত্বশীলতা দিয়ে থানাকে সবার আশ্রয়স্থল বানাতে হবে। সবাই ৯-৫টা কাজ করে কিন্তু থানার দরজা কখনো বন্ধ হয় না। প্রত্যাশা তৈরির পিছনে আপনারা যেভাবে অবদান রেখেছেন ভবিষ্যতেও মানুষের আস্থা, প্রত্যাশা আর ভালোবাসার জায়গা ধরে রাখতে হবে।
করোনাকালে চরম মানবিক সংকটে নিকটজন যখন লাশ ফেলে রেখে চলে গেছে বাংলাদেশ পুলিশ নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেই লাশ দাফনসহ মানুষের পাশে দাড়িয়েছে, সেবা দিয়ে গেছে। সেবা দিতে গিয়ে নিজের জীবন বিলিয়ে দিয়েছে।
আয়োজনের জন্য ডিএমপিকে ধন্যবাদ জানিয়ে আইজিপি বলেন, ডিএমপি বাংলাদেশ পুলিশের সবচেয়ে বড় ইউনিট। ডিএমপি অক্লান্তভাবে পরিশ্রম করে। ডিএমপি যেভাবে কাজ করে তা দেশি-বিদেশি সকল মানুষের কাছে দৃশ্যমান থাকে। ডিএমপি যেভাবে তাদের কাজ করছে আমাদের পক্ষ থেকে তাদের সেই কাজে সহায়তা অতীতের ন্যায় অব্যাহত থাকবে।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম বলেন, ঢাকা মহানগর পুলিশ মানুষের জন্য কাজ করে। মানুষের পাশে দাঁড়ানোর দায়িত্ববোধ ডিএমপির আছে। ঢাকা মহানগর পুলিশ ভাল কাজ করলে সারা দেশ ভাল চলে। ডিএমপি এ গর্ব ও ভালবাসা নিয়ে কাজ করে থাকে। ঢাকা মহানগরে কোন অপরাধ সংগঠিত হলে ডিএমপির অফিসাররা তা উদঘাটন না করা পর্যন্ত ক্ষান্ত হন না।

তিনি বলেন, আপনি যেমন সমগ্র চাকরি জীবনে একটিও নেগেটিভ প্রশ্নের সম্মুখিন হননি, তেমনি ডিএমপি বাংলাদেশ পুলিশের সর্ববৃহৎ ইউনিট হওয়া সত্ত্বেও এমন কোন কাজ করবে না যাতে আপনার মর্যাদাহানিকর হয়। আপনার নেতৃত্বে যেকোন পরিস্থিতিতে ইস্পাত কঠিন প্রত্যয় নিয়ে ডিএমপি কাজ করবে। ডিএমপির যেকোন ভাল উদ্যোগে আইজিপি ডিএমপির পাশে থাকবেন বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন।

এর আগে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের শুরুতে ডিএমপির পক্ষ থেকে নবনিযুক্ত আইজিপিকে ফুলের তোড়া দিয়ে বরণ করে নেন ডিএমপি কমিশনার। এর আগে প্রথমে মোটরকেড ও পরে সুসজ্জিত অশ্বারোহী দল আইজিপিকে অভ্যর্থনা জানায়। এরপর তিনি সশস্ত্র অভিবাদন গ্রহণ করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ