• বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:০৫ অপরাহ্ন

জামায়াত-শিবির দিয়ে সরকার মন্দিরে হামলা চালিয়েছে: জাফরুল্লাহ

আমার কাগজ ডেস্ক: / ৩৮ শেয়ার
প্রকাশিত : রবিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২১

চাঁদপুর প্রতিনিধি:

সম্প্রতি দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে মন্দিরে হামলা ও ভাঙচুর ঘটনায় সরকারকে দুষছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি বলেছেন, সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকতে জামায়াত-শিবির দিয়ে হিন্দুদের মন্দিরে হামলা চালিয়েছে। এজন্য সরকারের পদত্যাগ চেয়েছেন তিনি।

রবিবার চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ পৌরসভায় পুলিশ-জনতা সংঘর্ষের ঘটনায় উদ্ভুত পরিস্থিতি সরজমিনে পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের কাছে এসব কথা বলেন।

ভাসানী অনুসারী পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘সরকার হিন্দু মুসলমান সকলের জান-মালের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে। এর একমাত্র কারণ দেশে গণতন্ত্র নেই।’ তাই সরকারকে দ্রুত পদত্যাগের দাবি জানিয়ে জাতীয় সরকার গঠন করে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার আহ্বান জানান তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালকে ঘটনাস্থল পরিদর্শনের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আপনি ক্ষতিগ্রস্তদের বাড়িতে যান। প্রত্যেক মসজিদের ইমামদের হুকুম করুন, তারা যেন প্রতি ওয়াক্ত নামাজের সময় বলেন- হিন্দু-মুসলমান ভাই ভাই।’ এ দেশ আমার আপনার সকলের। এখানে যেসব হিন্দু নির্যাতিত হয়েছে তারা আমার ভাই-বোন। যারা নিহত হয়েছে তারাও আমাদের পরিবারের সদস্য।

তিনি বলেন, সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য জামায়াত শিবিরকে দিয়ে হিন্দুদের মন্দিরে হামলা চালিয়েছে। যতোগুলো মন্দির ভেঙেছে সরকার সবগুলো মন্দিরের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

এসময় সরকারের তরফ থেকে মাদ্রাসায় ৫ হাজার কোটি টাকা অনুদান দেওয়ার সমালোচনা করেন ডা. জাফরুল্লাহ। বলেন, সরকার বিভিন্ন মাদরাসায় ৫ হাজার কোটি টাকার অনুদান দিয়েছে সেখানেই মৌলবাদের বীজ রোপন করা হয়েছে। এ ভুলগুলো সরকারকে শুধরাতে হবে।

মন্দিরে কোরআন অবমাননার ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভ-সহিংসতা পুলিশ শক্ত হাতে দমন করায় পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয় সংবাদকর্মীদের ধন্যবাদও জানান ডা. জাফরুল্লাহ।

ভাসানী অনুসারী পরিষদের মহাসচিব শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু বলেন, সরকার পতনের জন্য এ দেশে একটি গণঅভ্যুত্থান ঘটানোর চেষ্টা করছি আমরা। ঠিক সেই সময় মানুষের দৃষ্টিকোণকে অন্য দিক সরাতে সরকার উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে হেফাজাত-জামায়াত-শিবিরকে মাঠে নামিয়ে মন্দিরে হামলা করিয়েছে।

এ সময় অন্যান্যেও মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রেস উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, ৬৯‘ শহীদ আসাদের ছোট ভাই ডা. নুরুজ্জামান, হাবিবুর রহমান রিজু, ভাসানী অনুসারী পরিষদের সদস্য ব্যারিস্টার সাদিয়া আরমান, হাসিবুদ্দিন হোসেন, জাতীয় নির্বাহী কমিটির রাজনৈতিক সমন্বয়ক ফরিদুল হক, সাংগঠনিক সমন্বয়ক ইমরান ইমন, অর্থ সমন্বয়ক দিদারুল ভূঁইয়া, সদস্য সারোয়ার তুষার, গোলাম মোস্তফা, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ভাসানী অনুসারী পরিষদের ছাত্র নেতা ইসমাইল হোসেন সম্রাট প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ