• বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ১২:৪১ অপরাহ্ন

চার মুসলিমকে ‘টার্গেট কিলিং’ সম্পর্কে যা বললেন বাইডেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: / ২০ শেয়ার
প্রকাশিত : সোমবার, ৮ আগস্ট, ২০২২

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ মেক্সিকো অঙ্গরাজ্যের আলবুকের্ক শহরে চার মুসলিমকে হত্যার ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। রোববার এক টুইটে তিনি বলেছেন, ‘আলবুকের্কেতে চার মুসলিমকে হত্যার ভয়াবহ ঘটনায় আমি ক্ষুব্ধ এবং ব্যথিত।’ কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার প্রতিবেদনে এমনটি বলা হয়।

টুইটে বাইডেন আরও বলেন, ‘নিহতদের পরিবারের জন্য প্রার্থনা করি এবং আমার প্রশাসন শক্তভাবে মুসলিম সমাজের পাশে থাকবে। (এ ঘটনায়) আমরা তদন্ত শেষ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করব। আমেরিকাতে এসব ঘৃণামূলক হামলার কোনো স্থান হবে না।’

অঙ্গরাজ্যের পুলিশ ও কেন্দ্রীয় সরকারের তদন্ত সংস্থা চার জন মুসলিমকে হত্যার ঘটনার মধ্যে যোগসাজশ থাকতে পারে বলে ধারণা করছে। ঘৃণামূলক অপরাধ হতে পারে বলে ধারণা পুলিশের।

অঙ্গরাজ্যের গভর্নর মিশেল লুজান গ্রিশাম এ হত্যাকাণ্ডকে ‘টার্গেট করে হত্যা’ বলে আখ্যায়িত করেছেন। টুইটে তিনি বলেন, আলবুর্কেকের মুসলিম বাসিন্দাদের টার্গেট করে করে হত্যার ঘটনা বেদনাদায়ক এবং একেবারেই অগ্রহণযোগ্য।’

I am angered and saddened by the horrific killings of four Muslim men in Albuquerque. While we await a full investigation, my prayers are with the victims’ families, and my Administration stands strongly with the Muslim community.

These hateful attacks have no place in America.

— President Biden (@POTUS) August 7, 2022
চতুর্থ মুসলিম ব্যক্তির নিহত হওয়ার ঘটনায় মুসলিমেরা আতঙ্কে রয়েছে। নিউ মেক্সিকো ইসলামিক সেন্টারের কর্মকর্তা তাহির গবা আলবুকের্ক জার্নালকে বলেন, ‘মানুষজন এখন আতঙ্কিত হতে শুরু করেছে।’

যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিমদের অধিকার নিয়ে কাজ করা সবচেয়ে বড় সংগঠন দ্য কাউন্সিল অন আমেরিকান-ইসলামিক রিলেশন্স এ হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের বিষয়ে তথ্যদাতার জন্য ১০ হাজার মার্কিন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছে।

দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত দুজন মুসলিম ব্যক্তির জানাজা হয় গত শুক্রবার দুপুরে। নিউ মেক্সিকোর ইসলামিক সেন্টারে ওই জানাজায় হাজারো মুসল্লির মাঝে উপস্থিত ছিলেন নাইম হুসাইন। কয়েক ঘণ্টা পর নাইম হুসাইনও দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হন। চার জনের দুজন একই মসজিদের সদস্য। এদের নিহতের বিষয়টির সঙ্গে গত বছরের ৭ নভেম্বর হালাল সুপার মার্কেটে গুলিতে নিহত আফগান অভিবাসী মোহাম্মদ আহমাদি হত্যার সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে বলে পুলিশের ধারণা।

পাকিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়া মোহাম্মদ আফজাল হোসেন (২৭) গত সোমবার আলবুকের্কে নিজের অ্যাপার্টমেন্টের সামনে খুন হন। অঙ্গরাজ্যের এসপানোলা শহরের পরিকল্পনা পরিচালক ছিলেন আফজাল। অন্যদিকে, আফতাব হোসাইনকে (৪১) গত ২৬ জুলাই আলবুকের্কের অন্যত্র গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ