• রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ০৫:০৬ অপরাহ্ন

খুলনাকে ‘ডাবল’ হারের স্বাদ দিল বরিশাল

স্পোর্টস ডেস্ক: / ৫৪ শেয়ার
প্রকাশিত : সোমবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২২

নিজেদের সবশেষ ম্যাচেই একে-অন্যের মুখোমুখি হয়েছিল খুলনা টাইগার্স ও ফরচুল বরিশাল। গতকাল (রোববার) হয়ে যাওয়া ওই ম্যাচে জিতেছিল বরিশাল। খুলনাকে ১৭ হারে হারায় সাকিব আল হাসানের দল। আজ (সোমবার) খুলনার সামনে লক্ষ্য ছিল ওই হারের মোক্ষম জবাব দেওয়ার। তবে এ ম্যাচ যেন আগের ম্যাচেই পুনরাবৃত্তি হলো। এবারও জয়ী দলের নাম বরিশাল। খুলনাকে তারা হারিয়েছে ৬ রানের ব্যবধানে।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে আগে ব্যাট করে অলআউট হওয়ার আগে ১৪৫ রানের পুঁজি পায় বরিশাল। ১৪৬ রানের লক্ষ্য টপকাতে নেমে ইয়াসির আলি রাব্বির ঝড়ো ব্যাটিংও জেতাতে পারেনি খুলনাকে। নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে তাদের ইনিংস থামে ১৩৯ রানে। এতে ৬ রানের জয় পায় বরিশাল। টুর্নামেন্টে ৫ ম্যাচে এটি তাদের তৃতীয় জয়। সমান ম্যাচে খুলনার হার ৩টি।

লক্ষ্য টপকাতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি খুলনার। দুই ওপেনার আন্দ্রে ফ্লেচার আর সৌম্য সরকার ধীরে শুরু করে দলের চাপ বাড়ান ইনিংসের শুরুতেই। পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে তোলেন ২২ রান। সপ্তম ওভারে সৌম্য আউট হন ২২ বলে ১৩ রান করে। দুই ওভার পর একই পথ ধরেন নতুন ব্যাটসম্যান রনি তালুকদার। সাকিবের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন ১২ বলে ৬ রান করে।

ইনিংসের ১০ ওভারে জোড়া আঘাত হানেন ব্রাভো। ফ্লেচার ২৩ বলে ১২ রানে আউট হওয়ার পর থিসারা পেরেরাও একই পথ ধরেন ৪ রান করে। এতে ১০ ওভারে ৪ উইকেট হারানো খুলনার সংগ্রহ দাঁড়ায় ৩৫ রান। এরপর দলের হাল ধরেন মুশফিক-রাব্বি। শুরুতে দেখেশুনে খেললেও উইকেটে থিতু হয়ে হাত খুলে খেলতে থাকেন দুজন। তাদের সামনে জয়ের জন্য লক্ষ্য দাঁড়ায় ৬০ বলে ১১১ রানের। সে পথে হাঁটতে গিয়ে পঞ্চম উইকেটে ৫০ বলে দুজন যোগ করেন ৭৯ রান।

ইনিংসের ১৯তম ওভারে মুশফিক ২২ বলে ৩৩ রান করে শফিকুলের বলে আউট হলে ভাঙে এই জুটি। তিনি আউট হলে শেষ ১০ বলে জয়ের জন্য ৩২ রানের প্রয়োজন পড়লে পেরে ওঠেনি খুলনা। নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৬ উইকেট হারিয়ে তাদের ইনিংস থামে ১৩৯ রান। এতে ৬ রানের জয় পায় বরিশাল। ৩০ বলে ফিফটি হাঁকানো ইয়াসির আলি রাব্বি ৩৪ বলে ৫৭ রানে অপরাজিত থাকেন। যেখানে ৪টি চারের সঙ্গে ৩টি ছয় মারেন তিনি। বরিশালের ব্রাভো সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট নেন।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নামে ফরচুন বরিশাল। উদ্বোধনী জুটিতে বেশ বড়সড় চমক নিয়ে নামে তারা। ক্রিস গেইলের সঙ্গে ইনিংস শুরু করেন ব্রাভো। তবে এবারের বিপিএলে প্রথমবারের মতো খুলনার একাদশে সুযোগ পাওয়া খালেদ আহমেদের বোলিং তোপে সুবিধা করতে পারেনি তারা। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে নিজের প্রথম ওভার হাত ঘুরাতে এসে ব্রাভোকে ফেরান ৯ রানে। পরে ইনিংসের চতুর্থ ওভারে শিকার বানান গেইলকে। গেইল বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন ৪ রান করে।

পঞ্চম ওভারে তৌহিদ হৃদয় ৫ রান করে রানআউটে কাটা পড়লে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে বরিশাল। ২৪ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলে সাকিব বাহিনী। বিপর্যয়ের পর অধিনায়ক সাকিবের ব্যাটে বিপদ এড়ায় বরিশাল। সঙ্গে হাল ধরেন নাজমুল হোসেন শান্ত। চতুর্থ উইকেটে সাকিব-শান্ত গড়েন ৭৯ রানের পার্টনারশিপ। শুরুতে রানের গতি স্লথ থাকলেও পরে ব্যাট চালিয়ে খেলে দলীয় স্কোর সচল রাখেন সাকিব।

তবে অল্পের জন্য সাকিব পাননি অর্ধশতকের দেখা। ২টি চার ও ৩টি ছক্কায় ২৭ বলে ৪১ রান করে বিদায় নেন। এদিন অর্ধশতক হাতছাড়ার আক্ষেপে পুড়তে হয় শান্তকেও। ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ৪০ বলে ৪৫ রান করে পেরেরার বলে আউট হন তিনি। সাকিব ও শান্তর বিদায়ের পর আবারও কমে যায় বরিশালের রানের গতি। শেষদিকে মুজিব উর রহমানের ৬ বলে ১২ রানের ইনিংসে পর ১৮.৫ ওভারে ১৪৫ রানে গুটিয়ে যায় বরিশাল। খুলনার পক্ষে খালেদ সর্বোচ্চ তিন উইকেট নেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ