• শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ১১:২৪ অপরাহ্ন

কুষ্টিয়া সদরে ১১ ইউপির ১০টিতেই নৌকার ভরাডুবি

প্রতিবেদকের নাম / ২৭ শেয়ার
প্রকাশিত : বুধবার, ৫ জানুয়ারী, ২০২২

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি:

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন পরিষদে বুধবার ভোটগ্রহণ হয়েছে। এর মধ্যে মাত্র একটি ইউনিয়নে জয় পেয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী। বাকি ১০টিতেই জিতেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। এর মধ্যে আটজন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী।

বুধবার (৫ জানুয়ারি) উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। রাতে গণনা শেষে নির্বাচনী কর্মকর্তারা বেসরকারিভাবে এসব ফলাফল ঘোষণা করেন।

১১টি ইউনিয়নের মধ্যে বেসরকারিভাবে যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারা হলেন- গোস্বামী দূর্গাপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে লাল্টু রহমান, উজানগ্রাম ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকে সানোয়ার হোসেন মোল্লা, মনোহরদিয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকে জহুরুল ইসলাম জহুর, হরিনারায়ণপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মটরসাইকেল প্রতীকে মেহেদী হাসান সম্রাট, আইলচারা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকে সিদ্দিকুর রহমান, হাটশ হরিপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোটরসাইকেল প্রতীকে এম মোস্তাক হোসেন মাসুদ, ঝাউদিয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী চশমা প্রতীকে মেহেদী হাসান, আলামপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী চশমা প্রতীকে আক্তারুজ্জামান বিশ্বাস,বটতৈল ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকে মিজানুর রহমান মিন্টু ফকির, আব্দালপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মটরসাইকেল প্রতীকে আলী হায়দার স্বপন ও পাটিকাবাড়ি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকে রোকনুজ্জামান কানু বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

আব্দালপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীক নিয়ে পরাজিত প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ আরব আলী ঢাকা টাইমসকে বলেন, সামাজিক দল শক্তিশালী হওয়ায় এমন ফলাফল হয়েছে। তিনি বলেন, এলাকার মানুষ দীর্ঘদিন সামাজিক দলে দুইভাগে বিভক্ত। এখানে জাতীয় রাজনীতির প্রভাব তেমনটা কাজে আসেনি।

নৌকার প্রার্থীদের পরাজয়ের বিষয়টি বিপর্যয় হিসেবে দেখছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আজগর আলী। তিনি ঢাকা টাইমসকে বলেন, সঠিক সমন্বয় করে কাজ করলে এমন বিপর্যয় হতো না।

আজগর আলী বলেন, আওয়ামী লীগ নেতাদের যার যে দায়িত্ব তা ঠিকমতো পালন করেনি।

এলাকা কুষ্টিয়া সদরে আওয়ামী লীগ এখন আগের চেয়ে অনেক শক্তিশালী। কিন্তু সমন্বয়ের অভাবেই এমন ফলাফল হয়েছে বলে মনে করেন এই নেতা।

প্রসঙ্গত, কুষ্টিয়ার ছয়টি উপজেলার ৬০টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো। নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে ২২ জন, স্বতন্ত্র ৩৭, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) একটিতে এবং বিএনপি দুটিতে বিজয়ী হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ