• বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৮:০৭ অপরাহ্ন

কাল থেকে ইলিশ ধরা বন্ধ ২২ দিন

প্রতিবেদকের নাম / ১৫ শেয়ার
প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর, ২০২২

চাঁদপুর প্রতিনিধি

ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ রক্ষায় ৭ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার মধ্যরাত) থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিন মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

নিষেধাজ্ঞার সময় ইলিশ আহরণ, পরিবহন, বাজারজাতকরণ, মজুদ ও ক্রয়-বিক্রয় সম্পন্ন নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে সরকার।

এদিকে মতলব উত্তরে ৮ হাজার ২১৭ জন ও মতলব দক্ষিণে ১ হাজার ৭শ জন জেলে মধ্যরাত থেকে বেকার হয়ে পড়বেন।

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার মেঘনা নদীর ষাটনল থেকে লক্ষীপুর জেলার চর আলেকজান্ডার পর্যন্ত ১০০ কিলোমিটারের মধ্যে মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল থেকে আমিরাবাদ পর্যন্ত ২৫ কিলোমিটার এলাকায় নিষেধাজ্ঞার সময়ে কোনো জেলে নদীতে নামতে পারবেন না।

প্রতি বছর আশ্বিনের ভরা পূর্ণিমার আগে-পরে ইলিশের ডিম ছাড়ার আসল সময়। এ সময় সাগর থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ মেঘনা নদীতে ছুটে আসে। এই সময়কে বিবেচনায় নিয়ে প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ করেছে সরকার। আইন অমান্যকারীকে মৎস্য আইনে সাজা প্রদান করা হবে।

মতলবের মেঘনাপাড়ের কালু মিয়া, ইমাম হোসেন, সুনিল দাশ সহ কয়েকজন জেলেরা জানান, নিষিদ্ধ সময়ে সরকারের পক্ষ থেকে চাল সহায়তা পান তারা। তবে তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল হওয়ায় জেলেদের দাবি এ সহযোগিতা যেন বাড়ানো হয়।

মতলব উত্তর ও দক্ষিণ উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্রে জানা যায়, মতলবে ৯ হাজার ৯১৭ জেলে আছে। এসব জেলের জন্য সরকার ২০ কেজি করে চাল বরাদ্দ দিয়েছে।

উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মনোয়ারা বেগম যুগান্তরকে জানান, মতলব উত্তর উপজেলায় ৮ হাজর ২১৭ জেলে রয়েছে। সরকারিভাবে সহযোগিতা করা হচ্ছে।

মতলব উত্তর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশ্রাফুল হাসান জানান, মা ইলিশ রক্ষায় নিষিদ্ধ সময়ে কোনো জেলেকে নদীতে নামতে দেয়া হবে না। এই নিষেধাজ্ঞা কেউ ভঙ্গ করলে এক থেকে দুই বছরের সশ্রম কারাদন্ড এবং সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দন্ডের বিধান রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ