• বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১২:২২ পূর্বাহ্ন

কালবৈশাখীতে দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রাণ গেল ৭ জনের

প্রতিবেদকের নাম / ২১ শেয়ার
প্রকাশিত : বুধবার, ২০ এপ্রিল, ২০২২

 

ঢাকাসহ কয়েকটি দেশের বিভিন্ন স্থানে কালবৈশাখী ঝড় বয়ে গেছে। বুধবার ভোরে ও বিকালে ঝড়ের তাণ্ডবে ৫ জেলায় ৭ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এছাড়া ঘরবাড়ি ও গাছপালার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে অনেক জেলায়। চট্টগ্রাম বন্দরের একটি বাল্কহেড ডুবে গেছে কর্ণফুলীতে।

জানা গেছে, বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জে শ্বশুর ও পুত্রবধূ, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড ও ফটিকছড়ি, মানিকগঞ্জের দৌলতপুর, লক্ষ্মীপুরের রায়পুর এবং কুমিল্লার মুরাদনগরে একজন করে মারা গেছেন। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে এ তথ্য জানা গেছে।

মেহেন্দিগঞ্জ (বরিশাল) প্রতিনিধি: বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জে কালবৈশাখী ঝড়ে ঘরচাপা পড়ে রুস্তম আলী হাওলাদার (৭৫) এবং তার পুত্রবধূ জয়নব বিবি (৩৫) মারা গেছেন। এছাড়া ঝড়ে ১৫-২০টি বসত ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বুধবার বিকাল পৌনে ৫টার দিকে উপজেলার আলিমাবাদ ইউনিয়নের গাগুরিয়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

শ্রীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহামদু বেপারী জানান, রুস্তম আলী হাওলাদার পরিবার নিয়ে শ্রীপুরের মিয়ারচর এলাকার থাকতেন। নদী ভাঙনের কবলে পড়ে তিনি পরিবার নিয়ে আলিমাবাদের গাগুরিয়ায় নতুন করে ঘর তুলে বসবাস শুরু করেন। বুধবার পৌঁনে ৫টার দিকে হঠাৎ করে ঝড় শুরু হলে গাগুরিয়া গ্রামের ১৫ থেকে ২০টি ঘর বিধ্বস্ত হয়। নিজ ঘরেই চাপা পড়েন রুস্তম ও তার পুত্রবধূ জয়নব। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে হুমায়ন কবির নামে এক পল্লী চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যায়। চিকিৎসক পরীক্ষা করে তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

মেহেন্দিগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম দুইজনের মৃত্যুর বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন।

মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নুরুন্নবী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক।

চট্টগ্রাম ব্যুরো: বুধবার সকালে চট্টগ্রামে হঠাৎ বয়ে গেছে কাল বৈশাখী ঝড়। সঙ্গে হয়েছে বৃষ্টিও। ঝড়ে জেলার ফটিকছড়িতে গাছের ডাল ভেঙ্গে রিনা আক্তার (৪০) নামে গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। চট্টগ্রাম বন্দরের একটি বাল্কহেড ডুবে গেছে কর্ণফুলীতে। তবে বেশ কয়েকদিনের অসহ্য গরমের পর বৈশাখি ঝড়ের সঙ্গে বৃষ্টিতে কিছুটা স্বস্তিও ছিল নগরবাসীর মধ্যে।

বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে হঠাৎ আকাশ কালো মেঘে ছেয়ে যায়। এরপরই শুরু হয় দক্ষিণ-পশ্চিম দিক থেকে হিমেল দমকা হাওয়াসহ কালবৈশাখী ঝড়। চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলায় কালবৈশাখী ঝড়ে গাছ ভেঙে পড়ে রিনা আকতার (৪০) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। সকালে উপজেলার উত্তর কাঞ্চননগর ঝরঝরি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। রিনা আকতার ওই এলাকার শাহ আলমের স্ত্রী।

ফটিকছড়ি উপজেলার ঝরঝরি এলাকার ইউপি সদস্য মোহাম্মদ এনামুল হক জানান, সকালে কালবৈশাখী ঝড় শুরু হলে গরু নিরাপদ স্থানে বাঁধতে যান রিনা আকতার। এমন সময় গাছ ভেঙে পড়ে তার ওপর। এতে আহত হন তিনি। উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব মো. ওমর ফারুক বলেন, সকাল সাড়ে ১০টায় বন্দরের চার্লি অ্যাংকারেজে একটি বাল্কহেড ডুবে গেছে। সেখানে পাঁচজন মাঝিমাল্লা ছিলেন। তাদের উদ্ধার করা হয়েছে। বাল্কহেড ডুবে যাওয়ায় বন্দরে জাহাজ আসা-যাওয়ার ক্ষেত্রে তেমন কোনো সমস্যা হচ্ছে না। তবে আমরা দুর্ঘটনা এড়াতে বয়া দিয়ে ওই জায়গাটা চিহ্নিত করে দিয়েছি।

এদিকে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে কালবৈশাখীর কবলে পড়ে একটি স্পিডবোটডুবির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এক শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

গুপ্তছড়া ঘাটের ইজারাদার মো. আনোয়ার জানান, সীতাকুণ্ড থেকে সন্দ্বীপের উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া একটি স্পিডবোট কালবৈশাখীর কবলে পড়ে গুপ্তছড়া ঘাটের কাছাকাছি এসে উল্টে যায়। স্পিডবোটে ২০ জনের মতো যাত্রী ছিল। এখন পর্যন্ত এক শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

কোস্টগার্ডের পূর্ব জোনের জোনাল কমান্ডার ক্যাপ্টেন কাজী শাহ আলম জানান, সন্দ্বীপে গুপ্তছড়া ঘাটের কাছে একটি স্পিডবোট মিসিং আছে শুনে অভিযান চলছে। তবে এ ঘটনায় কতজন নিখোঁজ আছে বা কতজনকে উদ্ধার করা হয়েছে তা এখনও জানা যায়নি।

রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে হঠাৎ ঝোড়ো হাওয়ায় গাছের নিচে চাপা পড়ে রুহুল আমিন (৬২) নামের এক বৃদ্ধের মারা গেছেন। উপজেলার কেরোয়া ইউনিয়নের মধ্য কেরোয়া গ্রামে বুধবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। তিনি ওই গ্রামের মাঝি বাড়ির মৃত শফি উল্লাহর ছেলে।

বৃদ্ধের ছেলে বিল্লাল হোসেন জানান, সকাল আটটার দিকে তিনি বাড়ি থেকে বের হয়ে সংলগ্ন দোকানে যান। ঝড়ো হাওয়া শুরু হলে বাড়ির দিকে ফিরতে থাকেন। তাদের বাড়ির পাঞ্জেগানা মসজিদের সামনে পাকা সড়কের কাছে আসলে একটি নারিকেল গাছ পড়লে তিনি তার নিচে চাপা পড়েন। গুরুতর আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে কর্তব্যর চিকিৎসক ইসমত জেরিন বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। বুকের উপর অতিরিক্ত চাপে তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

রায়পুর থানার ওসি শিপন বড়ুয়া বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে।

মুরাদনগর (কুমিল্লা) প্রতিনিধি: কুমিল্লার মুরাদনগরে কালবৈশাখী ঝড়ের তাণ্ডবে গাছের নিচে একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশা চাপা পড়ে শিশু মিয়া (৬০) নামে এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন শিশুসহ আরও ৫ জন। বুধবার সকালে উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানাধীন সলফা গ্রামের রামচন্দ্রপুর-শ্রীকাইল সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত শিশু মিয়া উপজেলার পূবধইর-পূর্ব ইউনিয়নের খোশঘর গ্রামের বাসিন্দা।

পুলিশ ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, পারিবারিক কাজে নিহত শিশু মিয়া তার পরিবারের লোকজন নিয়ে বুধবার সাড়ে ৯টার দিকে একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশা নিয়ে মুরাদনগর উপজেলার রামচন্দ্রপুর-শ্রীকাইল সড়ক হয়ে রামচন্দ্রপুর ফেরিঘাট এলাকায় যাচ্ছিল। এ সময় সিএনজিটি সলফা গ্রামে পৌঁছা মাত্র হঠাৎ কালবৈশাখী ঝড় শুরু হয়। এ সময় সড়কের পাশে থাকা একটি গাছের ডাল ভেঙে সিএনজি চালিত অটোরিকশার উপর পড়লে গাছের নিচে চাপা পড়েন ও অটোরিকশার যাত্রীরা। এ সময় অটোরিকশায় থাকা শিশু মিয়া ঘটনাস্থলেই মারা যান। এছাড়া অটোরিকশার চালকসহ পাঁচ যাত্রী আহত হয়।

বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে দ্রুত পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় একজন নিহত হয়েছেন ও আহত হয়েছেন ৫ জন।

যুগান্তর প্রতিবেদন, মানিকগঞ্জ: মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলায় কৃষাণী ফিরোজা বেগম (৫৫) জমিতে কাজ করতে গিয়ে বজ্রপাতে নিহত হয়েছে। বুধবার সকালে খলসী ইউনিয়নের রৌহা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত ফিরোজা ওই গ্রামের আবুল হোসেনের স্ত্রী। তিনি ৩ সন্তানের জননী।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ফিরোজা বাড়ি থেকে অর্ধ কিলোমিটার দূরে নিজ জমিতে সকালে ভুট্টা ক্ষেতে কাজ করতে যায়। এ সময় হঠাৎ ঝড়ো বৃষ্টির সাথে বজ্রপাত ঘটলে সঙ্গে সঙ্গে তার শরীরের বেশ কিছু অংশ ঝলসে যায়। গুরুত্বর অবস্থায় আশেপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে বাড়ি নেওয়ার পথেই তার মৃত্যু হয়।

খলসী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জিয়াউল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ফিরোজা বাড়ি থেকে অর্ধ কিলোমিটার দূরে নিজ জমিতে বৃষ্টির সময় ভুট্টা কাটতে গিয়ে বজ্রপাতের কবলে পড়েন। এ সময় হঠাৎ ঝড়ো বৃষ্টির সাথে বজ্রপাত ঘটলে সঙ্গে সঙ্গে তার শরীরের বেশ কিছু অংশ ঝলসে যায়। আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য বাড়ি আনার সময় পথেই তার মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ইমরুল হাসান বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। বজ্রপাতে মৃত্যুর ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ