• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১০:৩৯ অপরাহ্ন

ওয়েস্ট ইন্ডিজের দরকার ৩৫ রান, বাংলাদেশের ৭ উইকেট

স্পোর্টস ডেস্ক: / ১২ শেয়ার
প্রকাশিত : রবিবার, ১৯ জুন, ২০২২

ব্যাটিং দুর্দশায় অ্যান্টিগা টেস্টের প্রথম দিনই ম্যাচ থেকে অনেকটা ছিটকে যায় বাংলাদেশ। এরপর বোলারদের কল্যানে ম্যাচে ফিরলেও দ্বিতীয় ইনিংসে ফের হতাশা দেখালেন টপ অর্ডাররা। এর মধ্যেই নুরুল হাসান সোহানকে নিয়ে আশা দেখান সাকিব আল হাসান। তাতে ইনিংস ব্যবধানে হার এড়িয়ে ক্যারিবীয়দের ম্যাচের চতুর্থ ইনিংসে মাঠে নামায় বাংলাদেশ।

কিন্তু ইনিংস ব্যবধানে এড়ালেও হার ঠিকই চোখ রাঙাচ্ছে বাংলাদেশকে। মাত্র ৮৪ রানের লক্ষ্য নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ইনিংসের শুরুতেই তাদেরর তিন উইকেট তুলে নিয়ে লড়াই জমিয়ে তোলেন খালেদ আহমেদ। তবুও জুটির দেখা পেয়ে গেছে ক্যারিবীয়রা। দিনের শেষ দিকে উইকেটে থিতু হয়ে গেছেন দুই ক্যারিবীয় ব্যাটার জন ক্যাম্ববেল ও বনার।

তাই আগামীকাল রোববার চতুর্থ দিন হারই চোখ রাঙাচ্ছে বাংলাদেশকে। চতুর্থ দিন জয়ের জন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজের চাই আর মাত্র ৩৫ রান। অন্যদিকে জয়ের দেখা পেতে বাংলাদেশের চাই সাত উইকেট।

অ্যান্টিগার স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়ামে আজ ১১২ রান দূরে থেকে টেস্টের তৃতীয় দিন শুরু করে বাংলাদেশ। দিনের শুরুতেই ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। প্রথম সেশনেই মোট চার উইকেট হারিয়ে ফেলে বাংলাদেশ। ব্যর্থতার বৃত্তে আটকে থাকা দুই বাঁহাতি ব্যাটার নাজমুল হোসেন শান্ত ও মুমিনুল হককে সাজঘরে পাঠান কাইল মায়ার্স। এরপর কেমার রোচ ফেরান লিটন দাস ও মাহমুদুল হাসান জয়।

দিনের শুরুতে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে ১৭ রানে বিদায় নেন শান্ত। মায়ার্সের সুইংয়ে ভুগতে দেখা যায় মুমিনুলকেও। তিনিও মায়ার্সের বলেই এলবির শিকার হন।

বছর জুড়ে ছন্দে থাকা লিটন দাস ওয়েস্ট ইন্ডিজে হতে পারলেন না হতাশার মুখ। রোচের করা স্টাম্পের বাইরের বল জায়গায় দাঁড়িয়ে খেলে আলগা শটে স্লিপে ক্যাচ দেন লিটন। ১৫ বলে ১৭ রানে শেষ হয় তাঁর ইনিংস।

এর একটু পরেই বড় ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। গতকাল ব্যাটিংয়ে নেমে থিতু হয়ে যাওয়া জয় হুট করেই যেন মনোযোগ হারান। তিনিও উইকেটের পেছনে উইকেট উপহার দিয়ে ফেরেন সাজঘরে। ১৫৩ বলে তিন বাউন্ডারিতে ৪২ রান করে ফেরেন জয়।

প্রথম সেশনে ২৯ ওভার খেলে ৬৫ রান তোলে বাংলাদেশ। এই সেশনেই মূলত ৪ উইকেট হারিয়ে বড় বিপদে পড়ে যায় সাকিবের দল। শেষ পর্যন্ত সোহানকে নিয়ে সাকিব নিজেই আবারও হাল ধরেন। সপ্তম উইকেটে উপহার দেন ১২৩ রানের জুটি। দুজনেই তুলে নেন ব্যক্তিগত হাফসেঞ্চুরি। এই জুটিতে ভর করেই দলীয় রান প্রায় আড়াইশ’র কাছাকাছি যায় বাংলাদেশ। কিন্তু প্রথম ইনিংসে লিড থাকায় ক্যারিবীয়দের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ৮৪ রানের।

ব্যাট হাতে ৬৩ রানের ইনিংস উপহার দেন সাকিব। ৯৯ বলে তাঁর ইনিংসে ছিল ছয়টি বাউন্ডারি। তাঁর সঙ্গে উইকেটে থেকে ৬৪ রান করেন সোহান। ১৪৭ বলে তিনি হাঁকান ১১টি বাউন্ডারি।

বাংলাদেশকে দ্রুত থামাতে বল হাতে সবচেয়ে বেশি সাফল্য পান কেমার রোচ। ৫৩ রান দিয়ে ৫ উইকেট নেন তিনি। এ ছাড়া তিন উইকেট নেন আলজারি জোসেফ। আর কাইল মায়ার্স নেন দুটি উইকেট।

এর আগে প্রথম ইনিংসেও হতাশা দেখে বাংলাদেশ। বরাবরের মতো ব্যর্থ হন ব্যাটাররা। এক সাকিব ছাড়া ব্যাট হাতে সবাই দায়িত্বহীনতার পরিচয় দেন। প্রথম ইনিংসে মাত্র ১০৩ রানেই অলআউট হয় বাংলাদেশ।

বিপরীতে ব্যাট করতে নেমে প্রথম সেশনে স্কোরবোর্ডে ২৬৫ রান করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বল হাতে মেহেদী হাসান মিরাজের কল্যানে ক্যারিবীয়দের তিনশর নিচে থামাতে পারে সাকিব আল হাসানের দল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ১০৩

ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথম ইনিংস: ২৬৫

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস: (আগের দিন ৫০/২) ৯০.৫ ওভারে ২৪৫ (জয় ৪২, শান্ত ১৭, মুমিনুল ৪, লিটন ১৭, সাকিব ৬৩, সোহান ৬৪, ইবাদত ১, মুস্তাফিজ ৭, খালেদ ০*; রোচ ২৪.৫-১০-৫৩-৫, সিলস ১৪-১-৪৫-০, জোসেফ ১৯-৬-৫৫-৩, মেয়ার্স ১৩-৩-৩০-২, মোটি ১৫-২-৪২-০, রিফার ৫-১-১৭-০)।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ দ্বিতীয় ইনিংস : ১৫ ওভারে ৪৯/৩ ( ক্রেইগ ১, জন ২৮*, বনার ০, রেইফার ২, ব্ল্যাকউড ১৭*, সাকিব ২-০-৩-০, খালেদ ৫-০-১৪-৩, মিরাজ ২-০-১০-০, মুস্তাফিজ ৪-১-৭-০)।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ