• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:০৭ অপরাহ্ন

এক সপ্তাহে করোনার সংক্রমণ বেড়েছে ৬০ শতাংশ

আমার কাগজ ডেস্ক: / ২১ শেয়ার
প্রকাশিত : রবিবার, ২ জানুয়ারী, ২০২২

 

দেশে গত এক সপ্তাহে আগের সপ্তাহের চেয়ে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ৬০ শতাংশ বেড়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। শনাক্তের সংখ্যা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মৃত্যুর সংখ্যাও বাড়ছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

রবিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধ) অধ্যাপক রোবেদ আমিন নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এই তথ্য জানান।

রোবেদ আমিন বলেন, দেশে করোনা সংক্রমণের হার গত ২০ ডিসেম্বর থেকে বাড়তে শুরু করে। ২৭ ডিসেম্বর থেকে সংক্রমণ ২ শতাংশ পার হয়ে যায়। দীর্ঘ সময় ধরে এই হার দুইয়ের নিচে ছিল। কয়েক দিন একের নিচেও ছিল।

সরকারি উপাত্ত তুলে ধরে রোবেদ আমিন বলেন, নভেম্বরে দেশে করোনা শনাক্তের সংখ্যা ছিল ছয় হাজার ৭৪৫ আর ডিসেম্বরে এই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় নয় হাজার ২৫৫। করোনা শনাক্তের সংখ্যা বাড়তে থাকে গত ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে। শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও।

দেশে করোনায় যারা মারা যাচ্ছেন, তাদের মধ্যে পঞ্চাশোর্ধ্বদের সংখ্যা অনেক বেশি বলে জানান রোবেদ আমিন। তবে ৪১ থেকে ৫০ বছর বয়সী মানুষের মধ্যে মৃত্যুর হার ১১ শতাংশ।

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন নিয়ে রোবেদ আমিন বলেন, গত ২৪ নভেম্বর দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম ওমিক্রনে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। তবে এর তিন দিন আগে বতসোয়ানায় এটি ধরা পড়ে।

ওমিক্রন–সংক্রান্ত সাম্প্রতিক কিছু গবেষণার তথ্য তুলে ধরে রোবেদ আমিন বলেন, আশার কথা হলো, ওমিক্রনে আক্রান্ত ব্যক্তিদের ভীষণভাবে আক্রান্ত হয়ে যাওয়ার সংখ্যা কম। তবে এ নিয়ে আত্মতুষ্টির কোনো সুযোগ নেই। সবার জন্য মাস্ক পরিধান করার কোনো বিকল্প নেই। নিজের সুরক্ষার জন্য শুধু নয়, অন্যের জন্যও এটি জরুরি।

দেশে সংক্রমণ বাড়ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের এখানে বেশ কিছু টেস্ট হচ্ছে এবং টেস্টের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে ধীরে ধীরে। যেহেতু আমাদের কেসও বেড়ে যাচ্ছে। গত সপ্তাহে তার আগের সপ্তাহের তুলনায় ২০ শতাংশ টেস্ট বেশি করা হয়েছে। গত সাত দিনে আমাদের মৃত্যুর সংখ্যাও বেড়ে গেছে। করোনা প্রতিরোধে সারা দেশে মাসব্যাপী ভ্যাকসিন ক্যাম্পেইন করার বিষয়ে ভাবা হচ্ছে।

রোবেদ আমিন বলেন, আমাদের টার্গেট আছে এক মাসে চার কোটি ভ্যাকসিন দেওয়ার। আমরা চাই, জুন মাসের মধ্যে আমাদের ৮০ ভাগ লোক বা তারও বেশিসংখ্যক মানুষ যাতে ভ্যাকসিন গ্রহণ করে। পাশাপাশি বুস্টার ডোজের বিষয়ে যারা স্বাস্থ্যসংক্রান্ত বিষয়ে জড়িত আছেন স্বাস্থ্যকর্মী এবং ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তিদের বুস্টার নিতে আহ্বান জানানো হচ্ছে।

পুরুষের চেয়ে ওমিক্রনে বেশি আক্রান্ত হচ্ছে নারীরা

ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টে পুরুষদের তুলনায় নারীরা বেশি আক্রান্ত হচ্ছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। দক্ষিণ আফ্রিকাসহ বিশ্বের যেসব জায়গায় করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ছড়িয়ে পড়ছে, সেসব চিত্র ও গবেষণায় এই তথ্য জানা গেছে বলেও জানানো হয়েছে।

রোবেদ আমিন বলেন, একটা সময় আমরা বলেছিলাম পুরুষরা অনেক বেশিসংখ্যক আক্রান্ত হচ্ছেন। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে যে তথ্য এসেছে তাতে ওমিক্রণে পুরুষের চেয়ে নারীর আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা বেশি। একইসঙ্গে তরুণদের আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা বেশি। এক সময় বলা হতো তরুণদের ইমিউনিটি বেশি তারা আক্রান্ত হবেন না। ওমিক্রন এসে সেই ধারণাকে ভুল প্রমাণিত করেছে। শিশুদেরও আমরা আক্রান্ত হতে দেখেছি দক্ষিণ আফ্রিকা ও ইউরোপে।

এই কর্মকর্তা বলেন, আমাদের যে টিকাগুলো দেওয়া হচ্ছে সেটা কোনোটাই ওমিক্রন প্রতিরোধে শতভাগ কার্যকর না। যারা আগে দুই ডোজ ভ্যাকসিন নিয়েছেন, তাদের ক্ষেত্রে ভ্যাকসিনের অ্যান্টিবডির মাত্রা ধীরে ধীরে কমে যেতে পারে। ক্ষেত্র বিশেষে ওমিক্রম কার্যকর থাকতে পারে। বলা হচ্ছে, যারা কোভিড-১৯ এর দুটি ভ্যাকসিন নিয়েছেন তারা যেন বুস্টার ডোজ নেন। কারণ বুস্টার ডোজ নেওয়ার পরও দেখা যাচ্ছে অ্যান্টিবডির মাত্রা অনেক বেড়ে যায় যা ওমিক্রনের বিরুদ্ধে কার্যকর হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ