• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১০:৫৭ অপরাহ্ন

‘ইসির একার পক্ষে ভালো নির্বাচন করা সম্ভব নয়’

আমার কাগজ ডেস্ক: / ১৪ শেয়ার
প্রকাশিত : রবিবার, ১২ জুন, ২০২২

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, ‘দলগুলোর মধ্যে সমঝোতা, ঐক্যমত না থাকলে আমাদের পক্ষে নির্বাচন করা কষ্টকর হবে। নির্বাচন কমিশনের একার পক্ষে ভালো নির্বাচন করা সম্ভব নয়।’

রোববার (১২ জুন) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সাবেক নির্বাচন কমিশনারদের সঙ্গে সংলাপ শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

সিইসি বলেন, ‘অতিথিরা বলেছেন, বর্তমান সিস্টেম যে আছে, এখানে খুব বেশি ভালো করা সম্ভব নয়। এটা একটু কম-বেশি কিছু হতে পারে। আমরা যদি দৃঢ় থাকি, আইন দৃঢ়ভাবে বাস্তবায়নের চেষ্টা করি, তাহলে অনেকটা উন্নয়ন সম্ভব।’

তিনি বলেন, ‘সাবেক সিইসি রউফ সাহেব বলেছেন, প্রার্থী অনুযায়ী নয়, দলভিত্তিক নির্বাচনের কথা বলেছেন। নির্বাচনে দেখা গেল যে, অনেক আগে থেকে দলগুলো তাদের টোটাল প্রার্থীর নাম দিয়ে যাবে। সবাই ৩০০ আসনে দিল। পার্টি ক, খ, গ, ঘ। যে যত ভোট পেয়েছে, সেভাবে আসন পাবে। এ ধরনের একটা সিস্টেম আছে। তবে, এটা আমাদের বিষয় নয়। দলগুলোকেই দেখতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা যে শপথ গ্রহণ করেছি, বর্তমান যে আইনি কাঠামো আছে, সাংবাধিনাকি কাঠামো আছে, এর মধ্যেই আমাদের নির্বাচন করতে হবে। কেউ কেউ বলেছেন, একাধিক দিনে নির্বাচন করলে আইন-শৃঙ্খলা মোতায়েন সহজ হবে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ সহজ হবে। কেউ কেউ বলেছেন, এতে সমস্যাও হবে। এ নিয়ে কোনো ঐক্যমত হয়নি। কাজেই একাধিক দিনে নির্বাচন করলে আমাদের জন্য অসুবিধাও হতে পারে। ওই ধরনের প্রস্তুতি আমাদের নেই।’

দলগুলোকে পরামর্শ দিতে সমস্যা কোথায়? এমন প্রশ্নের জবাবে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘এখনো দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ করিনি। সবাই বলেছেন, নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হতে হবে। নির্বাচন যদি ইনক্লুসিভ না হয়, নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা বাস্তব অর্থে থাকবে না। আমাদের রাজনৈতিক সংস্কৃতি অনেকটা নষ্ট হেয়ে গেছে। এই কালচারের মধ্যে কিছু ইতিবাচক গুণ আনতে হবে। তাদের মধ্যে পরম সহিষ্ণুতা, ঐক্যমত যদি না থাকে নির্বাচন কমিশনের একার পক্ষে খুব ভালো নির্বাচন করা সম্ভব হবে না। দলগুলোর মধ্যে সমঝোতা, ঐক্যমত না থাকলে আমাদের পক্ষে নির্বাচন করা কষ্টকর হবে। এটা আমারা যেমন আগে বলেছি, উনার বলেছেন।’

কুমিল্লা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিনকে নির্বাচনি এলাকা ছাড়ার চিঠি দিলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি। এ বিষযে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘আমাদের কিছু আইনগত দিক আছে। কিছু ক্ষমতা আংশিক, কিছু পরিপূর্ণ। কুমিল্লায় যা বলা হয়েছে, সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা নির্বাচনি এলাকায় থাকতে পারবেন না। মাননীয় সংসদ সদস্য এই আচরণবিধি ভঙ্গ করছেন বলে প্রতীয়মান হয়েছে। আমরা তাকে এলাকা ছাড়তে বলেছি। উনি এলাকা ছাড়েননি। উনি মামলা করেছেন, আমরা ফলাফল পাইনি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা যখন কাউকে রিকোয়েস্ট করি, জোর করে একজন মাননীয় সংসদকে বলাটাই এনাফ। উনাকে যদি আমরা বলে থাকি, নির্বাচন আচরণবিধিতে এটা আছে, আপনি যদি একটু সরে থাকেন, নির্বাচন ভালো হয়। সেই চিঠিটা আমরা প্রকাশ্যে দিয়েছি। এটাই একজন মাননীয় সংসদ সদস্যের জন্য এনাফ, এটাকে অনার করা। যদি সেটাকে উনি অনার না করে থাকেন, আমাদের তেমন করার কিছু থাকে না।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ