• মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১০:২৩ অপরাহ্ন

আজ এশিয়া কাপের ফাইনাল

স্পোর্টস ডেস্ক: / ১৫ শেয়ার
প্রকাশিত : রবিবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২২

এবারের এশিয়া কাপে ভারত-পাকিস্তান ফাইনালের অনুকূলে বাজির দর ছিল সবচেয়ে বেশি। গ্রুপপর্ব ও সুপার ফোরে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর দুবার দেখা হলেও ফাইনালে ক্রিকেটের ‘এল ক্লাসিকো’ দেখার প্রত্যাশা এবারও পূরণ হয়নি ক্রীড়াপ্রেমীদের। সুপার ফোর থেকে ভারতের বিদায়ে এশিয়া কাপের টিআরপি রাতারাতি অর্ধেকে নেমে এসেছে। শ্রীলংকার অবশ্য এসব নিয়ে ভাবতে বয়েই গেছে! আন্ডারডগ হিসাবে আসর শুরু করা দলটি একের পর এক ভূমিকম্প ঘটিয়ে এখন শিরোপার স্বপ্ন দেখছে। দুবাইয়ে আজ শিরোপার লড়াইয়ে শ্রীলংকার সামনে পাকিস্তান। সাকিবরা গ্রুপপর্ব থেকে বিদায় নিলেও ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসাবে থাকছেন আম্পায়ার মাসুদুর রহমান মুকুল। বাংলাদেশের প্রথম আম্পায়ার হিসাবে এশিয়া কাপ ফাইনালে ম্যাচ পরিচালনার দায়িত্ব পেয়েছেন তিনি। রবিবাসরীয় ফাইনালের পোশাকি মহড়ায় পরশু একই ভেন্যুতে পাকিস্তানকে হেলায় হারিয়ে লংকানরা বুঝিয়ে দিয়েছে, তাদের আন্ডারডগ ভাবার দিন শেষ।

এশিয়া কাপের দ্বিতীয় সফলতম দল শ্রীলংকা। মহাদেশীয় শ্রেষ্ঠত্বের আসরে আজ তদের সামনে ষষ্ঠ শিরোপার হাতছানি। অন্যদিকে পাকিস্তান এশিয়া কাপ জিতেছে মাত্র দুবার। ফাইনালে উঠেছে ১০ বছর পর। কিন্তু বিশ্ব ক্রিকেটে গত কয়েক বছরে পাকিস্তান যতটা এগিয়েছে, ততটাই পিছিয়েছে শ্রীলংকা। এজন্যই বলা হচ্ছে, এবারের এশিয়া কাপে পুনর্জন্ম হয়েছে লংকান ক্রিকেটের। চরম অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সংকটে দ্বীপদেশটি জেরবার না হলে আজ কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে ফাইনাল খেলতেন শানাকারা। শ্রীলংকার অপারগতায় শেষ মুহূর্তে এশিয়া কাপ সরে যায় সংযুক্ত আরব আমিরাতে। মূল আয়োজক হলেও শুরুতে তাদের ভূমিকা ছিল নীরব দর্শকের। কিন্তু উদ্বোধনী ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছে আট উইকেটের শোচনীয় হারের পর বদলে যায় ছবিটা। অদৃশ্য কোনো টনিকে উজ্জীবিত লংকানরা টানা চার ম্যাচ জিতে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। অভাবনীয় রূপান্তরের পেছনে রয়েছে রিক্ত দেশবাসীর মুখে হাসি ফোটানোর তাড়না। ফাইনালের আগে সেটাই বললেন শ্রীলংকা অধিনায়ক দাসুন শানাকা, ‘ভীষণ কঠিন সময়েও দেশ থেকে দারুণ সমর্থন পাচ্ছি আমরা। একের পর এক ম্যাচ জিতে তাদের কিছু ফিরিয়ে দিতে পেরে তাই খুব ভালো লাগছে। তবে সেরা প্রতিদান হবে শিরোপা।’

সুপার ফোরের নিয়মরক্ষার ম্যাচে পাকিস্তানকে মাত্র ১২১ রানে অলআউট করে পাঁচ উইকেটে জিতলেও ফাইনালে কেউ শ্রীলংকাকে ফেভারিট ভাবছে না। কারণ, শক্তির বিচারে পাকিস্তানই এগিয়ে। ফাইনালের মহড়ায় নিজেদের অন্যতম সেরা দুই অস্ত্র নাসিম শাহ ও শাদাব খানকে খেলায়নি পাকিস্তান। সেটা মাথায় রেখেই সতর্ক শানাকা, ‘টানা চার ম্যাচ জিতে আমাদের আত্মবিশ্বাস এখন অনেক উঁচুতে। তাই বলে ফাইনালে পাকিস্তানকে হালকাভাবে নিতে পারি না। আমরা জানি, তারা কতটা ভালো দল। ঘুরে দাঁড়ানোর মতো দুর্দান্ত সব ক্রিকেটার আছে তাদের। সেভাবেই আমাদের প্রস্তুত হতে হবে।’

পাকিস্তানের মূল চিন্তা অধিনায়ক বাবর আজমের পড়তি ফর্ম। ব্যাটিংয়ে দলকে একাই টানছেন পাঁচ ম্যাচে ২২৬ রান করা মোহাম্মদ রিজওয়ান। তবে বাবরের ফর্ম নিয়ে মোটেও চিন্তিত নন কোচ সাকলাইন মুশতাক, ‘বাবর ফর্মেই আছে। শুধু ভাগ্যের সহায়তা পাচ্ছে না। আমি নিশ্চিত, সেরাটা সে ফাইনালের জন্য তুলে রেখেছে। শ্রীলংকা জয়ের আত্মবিশ্বাস নিয়ে ফাইনালে নামবে। পাকিস্তান নামবে ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে। ফাইনালে ভালো করার ব্যাপারে আমরা আত্মবিশ্বাসী।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ